“অর্থনৈতিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে ফ্রান্স থেকে এয়ারবাস কিনবে সরকার”

0

ষ্টাফ রিপোর্টার/- ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল মাখোঁ গত বছরের সেপ্টেম্বরে ঢাকা সফর করেন। সে সময় বাংলাদেশ থেকে এয়ারবাস কেনা নিয়ে আলোচনা হয়। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অবস্থা বিবেচনা করে আগামীতে দেশ থেকে এয়ারবাস কেনা হবে।

বৃহস্পতিবার (২৫ জানুয়ারি) পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন ফ্রান্স ও জার্মানির রাষ্ট্রদূত। দুই রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে বৈঠক শেষে ফ্রান্স থেকে এয়ারবাস কেনার বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

7Searchppc

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এয়ারবাস কেনার বিষয়ে (ফরাসি রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে) আলোচনা হয়েছে। ফ্রান্সের প্রেসিডেন্টের সফরের সময়ও এ নিয়ে আলোচনা হয়েছে। যখন আমাদের অর্থনীতি অনুমতি দেবে, আমরা করব।

মাখোনের বাংলাদেশ সফরের সময় বাংলাদেশের জন্য দ্বিতীয় স্যাটেলাইটের জন্য একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। তবে এ বিষয়ে বাংলাদেশ এখনো চূড়ান্ত সমঝোতায় পৌঁছাতে পারেনি। এ বিষয়ে অগ্রগতি জানতে চাইলে হাছান মাহমুদ বলেন, স্যাটেলাইট-২ আমাদের অগ্রাধিকার। বিশেষ করে, আবহাওয়া বার্তা পাঠানোর জন্য, নিরাপত্তা বিষয়গুলি গুরুত্বপূর্ণ। সেপ্টেম্বরে এ বিষয়ে একটি এমওইউ স্বাক্ষরিত হয়। এর মধ্যে ছিল আমাদের নির্বাচন। নিশ্চয়ই দ্রুত কাজ শেষ হবে।

জার্মান রাষ্ট্রদূত আখিম ট্রস্টার ফরাসি রাষ্ট্রদূত মারি মাসদুপাউয়ের সঙ্গে আলোচনায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ফ্রান্স ও জার্মানি বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ উন্নয়ন সহযোগী। স্বাধীনতার পরপরই যে কয়েকটি দেশ আমাদের স্বীকৃতি দিয়েছিল তার মধ্যে দুটি দেশ ছিল। বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম রপ্তানি বাজার জার্মানি। ফ্রান্সও আমাদের রপ্তানি বাণিজ্যে বৃদ্ধি পাচ্ছে, বিশেষ করে তৈরি পোশাকে।

‘সরকারের সঙ্গে সম্পর্ক আরও গভীর করতে বাণিজ্যের ঝুড়ি বাড়ানোর বিষয়ে আলোচনা করেছি’- বলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। ফরাসী রাষ্ট্রপতি ও জার্মান চ্যান্সেলর দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনে পুনঃনির্বাচিত হওয়ায় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন বার্তা পাঠান, যা দুই রাষ্ট্রদূত আনুষ্ঠানিক পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর করেন।

মুক্তিযুদ্ধের পর জার্মানি ও ফ্রান্স বাংলাদেশ থেকে অনেক যুদ্ধশিশুকে দত্তক নেয়। এজন্য তাদের ধন্যবাদ জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী। হাছান মাহমুদ বলেন, মুক্তিযুদ্ধের পর জার্মানি ও ফ্রান্স আমাদের যুদ্ধ শিশুদের নিয়ে যায়। মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানি বাহিনীর বর্বরতার কারণে ওই শিশুর জন্ম হয়। তাই তাদের যুদ্ধশিশু বলা হয়। তবে জার্মানির বড় ক্ষতি হয়েছে। তখন শিশুরা এতিম ছিল।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমাদের অনেক মুক্তিযোদ্ধা পঙ্গু হয়ে গেছে। দুই দেশের পক্ষ থেকে তাদের চিকিৎসাও করা হয়েছে। আমি এর জন্য জার্মানি এবং ফ্রান্সকে ধন্যবাদ জানাই।

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.