মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও কাতারের প্রধানমন্ত্রীর বৈঠক

0

ষ্টাফ রিপোর্টার- মিউনিখ – ঘটনাগুলির একটি আশ্চর্যজনক মোড়ের মধ্যে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং কাতারের প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ বিন আবদুল রহমান আল থানি আজ মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলন (এমএসসি) 2024-এর সাইডলাইনে একটি অপ্রকাশিত বৈঠক করেছেন। সম্মেলনে উত্তেজনা চলছে। এই গোপন মিলনমেলা আন্তর্জাতিক রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মধ্যে কৌতূহল ও জল্পনা-কল্পনার জন্ম দিয়েছে।

মিউনিখের বিলাসবহুল হোটেল বেয়েরিশার হফ-এ অনুষ্ঠিত বৈঠকটি গোপনীয়তায় আবৃত ছিল, বিস্তারিত আঁটসাঁট মোড়কে রাখা হয়েছিল। সম্মেলনের বাইরে বিশৃঙ্খলা দেখা দিলে দুই নেতা পারস্পরিক ও বৈশ্বিক স্বার্থের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনায় লিপ্ত হন।

যদিও কথোপকথনের সঠিক বিবরণ অপ্রকাশিত রয়ে গেছে, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ঘনিষ্ঠ সূত্রগুলি পরামর্শ দেয় যে নিরাপত্তা সহযোগিতা, আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা এবং দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য সম্পর্কের মতো বিষয়গুলি আলোচ্যসূচিতে থাকতে পারে। তবে, এটি লক্ষ করা গুরুত্বপূর্ণ যে বৈঠকের প্রকৃতি সম্পর্কে কোনও আনুষ্ঠানিক বিবৃতি প্রকাশ করা হয়নি।

উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মাসুদ বিন মোমেন উপস্থিত ছিলেন।

মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলন, 16 থেকে 18 ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চলমান, এই বছর রাজনৈতিক উত্তেজনার কেন্দ্রস্থল হয়েছে। বিশ্বব্যাপী নেতা এবং কূটনীতিকরা বিশ্বব্যাপী মঞ্চে জর্জরিত গুরুত্বপূর্ণ নিরাপত্তা সমস্যা নিয়ে আলোচনা করতে জড়ো হয়েছেন। যাইহোক, পর্দার আড়ালে আলোচনা এবং এর মতো অপ্রত্যাশিত বৈঠক ঘটনাটিতে রহস্যের একটি আকর্ষণীয় স্তর যুক্ত করেছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং প্রিমিয়ার আল থানির মধ্যে গোপন বৈঠকের খবর দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে হোটেলের ভারী সুরক্ষিত প্রাচীরের মধ্যে সম্ভাব্য প্রভাব এবং চুক্তি সম্পর্কে জল্পনা শুরু হয়েছে।

যদিও কিছু পণ্ডিত যুক্তি দেন যে এই ধরনের গোপন বৈঠকগুলি আন্তর্জাতিক কূটনীতির জগতে সাধারণ, অন্যরা এটিকে সম্মেলনের গোলযোগের মধ্যে কৌশলগত কৌশলের একটি চিহ্ন হিসাবে দেখেন। এই বৈঠকের প্রকৃত প্রভাব তাদের নিজ নিজ দেশ এবং বৈশ্বিক মঞ্চে কী হবে তা কেবল সময়ই বলে দেবে।

যেহেতু নাগরিক এবং রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা অধীর আগ্রহে আরও আপডেট এবং অফিসিয়াল বিবৃতির জন্য অপেক্ষা করছেন, এটা স্পষ্ট যে এই গোপন বৈঠকটি মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনের বাকি অংশ এবং বাংলাদেশের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ওপর দীর্ঘ ছায়া ফেলবে।

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.