নির্বাচন বর্জনের আহ্বান জানিয়ে তিন দিনের কর্মসূচি ঘোষণা জামায়াতের

0

ষ্টাফ রিপোর্টার/- নির্বাচন বর্জনের আহ্বান জানিয়ে আরও তিন দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী। নতুন কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে ৫ জানুয়ারি দেশব্যাপী মিছিল ও গণসমাবেশ এবং ৬ জানুয়ারি সকাল ৬টা থেকে ৮ জানুয়ারি সকাল ৬টা পর্যন্ত ৪৮ ঘণ্টার দেশব্যাপী হরতাল। কর্মসূচি সফল করতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে দলটি।

বৃহস্পতিবার (৪ জানুয়ারি) এক বিবৃতিতে জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা এটিএম মাছুম এসব কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

7Searchppc

বিবৃতিতে তিনি বলেন, দেশের বুদ্ধিজীবী, সুশীল সমাজ ও রাজনৈতিক দলগুলো জাল নির্বাচন বর্জন করে নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের মাধ্যমে জনগণের প্রতিনিধিত্বমূলক সরকার গঠনের ওপর জোর দিয়ে আসছে। তবে এ ব্যাপারে সরকারের কোনো উদ্যোগ নেই। প্রত্যেক নাগরিকের ভোট দেওয়া বা না দেওয়ার অধিকার রয়েছে। আওয়ামী লীগ প্রশাসনের সহায়তায় ভোটারদের ভোটকেন্দ্রে যেতে চাপ ও ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। নির্বাচনের দিন সরকার নৈরাজ্য সৃষ্টির পরিকল্পনা করতে পারে বলে সংবাদপত্রে খবর প্রচার হচ্ছে। সরকারের সকল ষড়যন্ত্র নস্যাৎ করতে এবং প্রহসনমূলক নির্বাচন বয়কট করতে আমরা ৪৮ ঘণ্টার সর্বাত্মক হরতালসহ তিন দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করছি।

মাওলানা এটিএম মাছুম বলেন, ‘সন্ত্রাস, নৈরাজ্য ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলার রায় ঘোষণার মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগ ২০২৪ সালের যাত্রা শুরু করেছে। ৭ জানুয়ারির প্রহসনের নির্বাচনকে সামনে রেখে ভোটারদের ভয়ভীতি, ভীতি প্রদর্শন, গ্রেফতার ও হয়রানি অব্যাহত রয়েছে।

তিনি বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় যশোর পূর্ব সাংগঠনিক জেলা জামায়াতের আমির মাস্টার নুরুন্নবী, পঞ্চগড় জেলার দেবীগঞ্জ উপজেলার আমির আবুল বাশার বসুনিয়া ও নাটোর জেলার লালপুর উপজেলার আমির মাওলানা আবুল কালাম আজাদসহ ২৫ নেতাকর্মীকে অন্যায়ভাবে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আমি এই গ্রেফতারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই এবং তাদের দ্রুত মুক্তি দাবি করছি। আওয়ামী লীগের রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসে অনেক স্বতন্ত্র প্রার্থী প্রহসনের নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ান। সরকার অবশেষে কারচুপির নির্বাচনের মাধ্যমে বাংলাদেশকে গণতান্ত্রিক বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন করার প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছে।

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.