একতরফা ও ভুয়া নির্বাচনের মাধ্যমে কেন তারা দেশের গণতন্ত্রকে হত্যা করল?

0

ষ্টাফ রিপোর্টার/- বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান বলেন, আওয়ামী লীগ সব সময় বলে তারা মুক্তিযুদ্ধের শক্তি। তা হলে ৫ জানুয়ারির একতরফা ও ভুয়া নির্বাচনের মাধ্যমে কেন তারা দেশের গণতন্ত্রকে হত্যা করল?

বৃহস্পতিবার (১১ জানুয়ারি) বিকেল ৩টার পর রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ৭ জানুয়ারি নির্বাচন নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

গত ২৮ অক্টোবর বিএনপির সাধারণ সভার দিন পুলিশ ও আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের সঙ্গে বিএনপি নেতাকর্মীদের সংঘর্ষে সাধারণ সভা বন্ধ হয়ে যায়। ওই রাতেই বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তালাবদ্ধ করে। দীর্ঘ ৭৪ দিন পর আজ সকালে তালা ভেঙে দলীয় কার্যালয়ে প্রবেশ করেন বিএনপি নেতারা।

মঈন খান বলেন, নির্বাচনের পর গত তিন দিনে দেশ-বিদেশের প্রায় সব গণমাধ্যমই প্রতিবেদন দিচ্ছে যে ৫ জানুয়ারির নির্বাচন ছিল একতরফা ও প্রহসনমূলক নির্বাচন। গণতান্ত্রিক বিশ্বের অন্যতম দেশ যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা ও জাতিসংঘ বলেছে, এই নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয়নি। সবাই নির্বাচনে অংশ নেয়নি।

তিনি বলেন, সরকার জনগণকে বোকা বানিয়ে নির্বাচনের যে পরিবেশ সৃষ্টি করেছে তা সম্পূর্ণ ভুয়া ও পূর্বপরিকল্পিত। নির্বাচনের আগে ও পরে বিভিন্ন দেশি-বিদেশি মিডিয়ায় প্রকাশিত ৫০০টি ভিডিও ক্লিপ আমরা পেয়েছি। ইতিমধ্যে আমরা 250 নিয়ে একটি প্রকাশনা করছি। বাকি 250টিও শীঘ্রই প্রকাশিত হবে।

ডাঃ মঈন খান বলেন, ভোট ডাকাতি, জালিয়াতি, প্রহসন, আসন ভাগাভাগিসহ নির্বাচনকালীন নানা অনিয়মের নথি আমাদের কাছে রয়েছে। এগুলো ধীরে ধীরে প্রকাশ করা হবে।’

বিএনপির এই সিনিয়র নেতা বলেন, বিদেশি মিডিয়া বলছে এই সরকার বাকশাল-২। প্রথমটি বাবা করেছেন, দ্বিতীয়টি করেছেন তার মেয়ে শেখ হাসিনা। তারা বলছেন, ৭ জানুয়ারি নির্বাচন হয়নি। যা হয়েছে তা একতরফা ও পরিকল্পিত।

ড. মঈন খান বলেন, ২৯৯টি আসনের মধ্যে কে নির্বাচিত হবেন, কে নির্বাচিত হবেন, কে জয়ী হবেন এবং কে হারবেন তা আগেই ঠিক করা হয়েছিল। আশ্চর্যের বিষয় হলো, রাতে মানুষ চুরি করে। তবে এই সরকার দিনের বেলায় ভোট চুরি, আসন ভাগাভাগি সবই করেছে।

বিএনপি জনগণের জন্য রাজনীতি করে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা বিশ্বাস করি জনগণই সকল ক্ষমতার উৎস। আমরা জনগণের অধিকার আদায়ের জন্য রাজপথে শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করছি। সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করাই বিএনপির মূল লক্ষ্য। সেই আন্দোলনে আমরা সফল হব।

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.