LastNews24
Online News Paper In Bangladesh

২২১৪ ভারতীয় ট্রাক নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য নিয়ে ঢুকছে বাংলাদেশে

2

বোনাপোল থেকে প্রতিনিধি/- বুধবার (২৮ এপ্রিল) দুপুরে নো-ম্যানস ল্যান্ডে এক জরুরি বৈঠকে ভারতের পেট্রাপোলে পণ্যবাহী ট্রাকের জট কমাতে বেনাপোল-পেট্রাপোল চেকপোস্টের নো-ম্যানস ল্যান্ডে ভারত থেকে আমদানিকৃত পণ্য লোড-আনলোডের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ভারত-বাংলাদেশের বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতারা। তবে প্রশাসনের সবার সঙ্গে কথা বলে চালু করা হবে আমদানি-রফতানি কার্যক্রম। নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য, অতিপ্রয়োজনীয় ও পচনশীল পণ্য দিয়ে ভারত রফতানি শুরু করবে। পরে অন্যান্য পণ্য আমদানি-রফতানি হবে।

করোনাভাইরাসে লকডাউনের মধ্যেই বুধবার দুপুরে নো-ম্যানস ল্যান্ডে এক জরুরি বৈঠকে বসেন বাংলাদেশ-ভারতের ব্যবসায়ী নেতারা। এ সময় বাংলাদেশের পক্ষে বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সহ-সভাপতি কামাল উদ্দিন শিমুল, সদস্য আমিনুল হক আনু, সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট স্টাফ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সাজেদুর রহমান ও কার্গো সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রাকিব উপস্থিত ছিলেন।

ভারতের পক্ষে পেট্রাপোল সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট স্টাফ ওয়েল ফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক কার্তিক চক্রবর্তী ও বনগাঁ আমদানি-রফতানিকারক সমিতির সভাপতি পরিতোষ বিশ্বাস উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে ব্যবসায়ী নেতারা বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দরে আমদানি-রফতানি চালু করতে পারছে না পেট্রাপোল বন্দর কর্তৃপক্ষ। বাংলাদেশে প্রবেশের অপেক্ষায় পেট্রাপোল বন্দরের সেন্ট্রাল পার্কিং থেকে বনগাঁ পৌরসভার কালিতলা পার্কিং পর্যন্ত ২২১৪ পণ্যবোঝাই ভারতীয় ট্রাক দাঁড়িয়ে রয়েছে। ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার ও পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের মতপার্থক্যের জন্য আগের মতো বাণিজ্য চালু করা যাচ্ছে না। ফলে পাটবীজসহ বিভিন্ন ধরনের পচনশীল পণ্য ও শিল্প কল-কারখানায় ব্যবহৃত কাঁচামাল আটকে পড়ায় বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।

একই সঙ্গে দুই দেশে প্রায় ৩০-৪০ হাজার মানুষ বেকার হয়ে পড়েছেন। আমদানি-রফতানি চালু হলে বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দরে কর্মচাঞ্চল্য ফিরে আসবে। করোনাভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে বন্দর ব্যবহারকারীদের স্বাস্থ্য সচেতনতামূলক হ্যান্ড গ্লাভস, মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার অথবা সাবান পানির ব্যবস্থা থাকবে।

petrapol1ভারতের পেট্রাপোল সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট স্টাফ ওয়েল ফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক কার্তিক চক্রবর্তী বলেন, করোনাভাইরাসের জন্য ভারত সরকার দফায় দফায় লকডাউন বৃদ্ধি করায় আমদানি-রফতানি চালু করা সম্ভব হচ্ছে না। লকডাউন ঘোষণার পর গত ২৩ মার্চ থেকে ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে সবপ্রকার আমদানি-রফতানি বন্ধ রয়েছে। ভারতীয় ট্রাকচালকরা বাংলাদেশে গেলে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনে রাখবে পেট্রাপোল পুলিশ। তাই ভারতীয় ট্রাক নো-ম্যানস ল্যান্ড পর্যন্ত যাবে। বাংলাদেশি ট্রাকচালক ও শ্রমিকরা সেখান থেকে মালামাল লোড-আনলোড করে নেবে। নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য, অতিপ্রয়োজনীয় ও পচনশীল পণ্য দিয়ে রফতানি শুরু হবে। পরে অন্যান্য পণ্য রফতানি হবে। পরিস্থিতি ভালো হলে আগের মতো কাজ শুরু হয়ে যাবে।

বেনাপোল আইসিপি বিজিবি ক্যাম্পের কমান্ডার আব্দুল ওয়াহাব বলেন, নো-ম্যানস ল্যান্ড ব্যবহার করতে হলে বিজিবির ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিতে হবে। আমরা কথা বলার পর আপনারা কাজ করতে পারবেন।

বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সহ-সভাপতি কামাল উদ্দিন শিমুল বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে দুই দেশে লকডাউন চলছে। ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ারও একটি বিষয় আছে। প্রবেশের অপেক্ষায় প্রায় ২৩০০ পণ্যবোঝাই ট্রাক পেট্রাপোল বন্দরে দাঁড়িয়ে আছে। রোজার সময় ফল, পেঁয়াজের প্রয়োজন। তাই নো-ম্যানস ল্যান্ড ব্যবহার করে কার্যক্রম চালুর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

2 মন্তব্য
  1. узнать эту информацию здесь বলেছেন

    просматривать этот сайт – http://www.algiykids.com/pornomira/

  2. Dermsoft Site Oficial বলেছেন

    Veja cá as Camisas com Proteção Solar Extreme radiação ultravioleta. http://jeansground28.mystrikingly.com/blog/

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.