Ultimate magazine theme for WordPress.

বাংলাদেশ নারী উন্নয়ন ও নারী ক্ষমতায়নে অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত

0

ষ্টাফ রিপোর্টার/- পারস্পরিক সহযোগিতার মাধ্যমে বাংলাদেশ ও সার্বিয়ার মধ্যে বিদ্যমান সম্পর্ক আরও সুদৃঢ় হতে পারে। বাংলাদেশ নারী উন্নয়ন ও নারী ক্ষমতায়নে বিশ্বের কাছে অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত। বলেছেন,সার্বিয়া পার্লামেন্টের স্পিকার ও ১৪১তম ইন্টার পার্লামেন্টারি ইউনিয়নের (আইপিইউ) সম্মেলনের প্রেসিডেন্ট মাজা গজকোভিচ।

সোমবার (১৪ অক্টোবর) সন্ধ্যায় বেলগ্রেডে আইপিইউর ভেন্যু সাভা সেন্টারে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সঙ্গে সাক্ষাৎকালে একথা বলেন তিনি। সাক্ষাৎকালে তারা দ্বিপাক্ষিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়, সংসদীয় চর্চা, সংসদীয় মৈত্রী গ্রুপ, সংসদীয় ও অর্থনৈতিক সহযোগিতা, টেকসই উন্নয়ন (এসডিজি), জলবায়ুর বিরূপ প্রভাব এবং বাংলাদেশের অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়ন বিষয়ে আলোচনা করেন।

স্পিকার বলেন, বাংলাদেশের সাথে সার্বিয়ার (তৎকালীন যুগোস্লাভিয়া) সম্পর্ক ঐতিহাসিক। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পরপরই যুগোস্লাভিয়া বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয়। ১৯৭৩ সালে যুগোস্লাভিয়ায় বঙ্গবন্ধুর সফরই দুই দেশের সম্পর্কের সূচনা ভিত। যুগোস্লাভিয়ার তৎকালীন প্রেসিডেন্ট মার্শাল টিটোর বাংলাদেশ সফর এ সম্পর্কে নতুন মাত্রা যোগ করে।

ড. শিরীন শারমিন বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে বাংলাদেশ সামাজিক ও অর্থনৈতিকসহ সকল সূচকে সুদৃঢ় অবস্থানে রয়েছে। বর্তমান সরকার নারী উন্নয়ন ও ক্ষমতায়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা, বিরোধী দলের নেতা এবং জাতীয় সংসদের স্পিকারও একজন নারী উল্লেখ করে তিনি বলেন, বাংলাদেশে নারী অর্থনৈতিক ক্ষমতায়ন আজ দৃশ্যমান। নারীর ক্ষমতায়নের ফলে তৃণমূলে উন্নয়ন সেবা সহজেই পৌঁছে যাচ্ছে। এতে ধারাবাহিকভাবে জিডিপি ৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করাও সম্ভব হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ জাতীয় সংসদে জনগণের সরাসরি ভোটে নির্বাচিত ৩০০ জন ও সংরক্ষিত মহিলা আসনের ৫০ জন সংসদ সদস্য রয়েছেন। সরকারের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতে ৫০টি সংসদীয় কমিটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। সংসদীয় চর্চা ও অভিজ্ঞতা বিনিময়ের মাধ্যমে দুই দেশের সম্পর্ক আরও শক্তিশালী হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

মাজা গজকোভিচ বলেন, সংসদীয় মৈত্রী গ্রুপ গঠনের মাধ্যমে নতুন করে দুদেশের সম্পর্ক প্রতিষ্ঠিত হবে। এ সময় বাংলাদেশে সফরের জন্য স্পিকারের আমন্ত্রণ গ্রহণ করেন এবং বাংলাদেশ সফরের প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন তিনি।এর আগে বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের সদস্য আবদুস সালাম মূর্শেদী এমপি ১৪১তম আইপিইউ সম্মেলনের ‘দ্য রোল অব পার্লামেন্টেরিয়ানস ইন এনহ্যান্সিং ন্যাশনাল ইমপ্লিমেন্টেশন অব দ্য কেমিক্যাল উইপন্স কনভেনশন’ শীর্ষক সেশনে বক্তব্য রাখেন।

সাক্ষাৎকালে বাংলাদেশ সংসদীয় প্রতিনিধিদলের সদস্য ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া এমপি, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি তোফায়েল আহমেদ এমপি, শিল্প মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি আমির হোসেন আমু এমপি এবং ইতালিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আবদুস সোবহান সিকদার উপস্থিত ছিলেন।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.