ভবদহে টিআরএম প্রকল্প চালুর দাবিতে অভয়নগরে মানববন্ধন

0

মোঃ রবিউল ইসলাম ( অভয়নগর ,যশোর)/- দ্রুত সময়ের মধ্যে যশোরের অভয়নগরের ভবদহ এলাকার জলাবদ্ধতা নিরসনের স্থায়ী সমাধানে টিআরএম প্রকল্প (টাইডাল রিভার ম্যানেজমেন্ট) চালুসহ ৬ দফা দাবি বাস্তবায়নের লক্ষে যশোরের অভয়নগরে মাদববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। মানববন্ধনে নেতৃবৃন্দ পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকান্ডে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। দাবি বাস্তবায়ন করা না হলে অনশন কর্মসূচিসহ কঠোর আন্দোলনের হুশিয়ারি দিয়েছেন নেতৃবৃন্দ। রোববার সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত চলা এই মানববন্ধন যশোর-খুলনা মহাসড়কের নওয়াপাড়া নূরবাগ বাসস্ট্যান্ডে অনুষ্ঠিত হয়। জলাবদ্ধ এলাকার হাজার হাজার নারী-পুরুষ বিভিন্ন প্লাকার্ড হাতে নিয়ে মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করেন। ভবদহ জলাবদ্ধতা নিরসন আন্দোলন কমিটি ও কেন্দ্রীয় পানি কমিটির আয়োজনে মানববন্ধন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন- ভবদহ জলাবদ্ধতা নিরসন আন্দোলন কমিটি ও অভয়নগর উপজেলা আওয়ামীলীগের আহবায়ক এনামুল হক বাবুল। মানববন্ধন চলাকালে একমত পোষণ করে বক্তব্য রাখেন- অভয়নগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. শাহীনুজ্জামান। এসময় আরও বক্তব্য রাখেন- অভয়নগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম আহবায়ক শাহ্ ফরিদ জাহাঙ্গীর, নওয়াপাড়া পৌরসভার মেয়র সুশান্ত কুমার দাস শান্ত, পায়রা ইউপি চেয়ারম্যান ও আন্দোলন কমিটির সদস্য সচিব বিষ্ণুপদ দত্ত, খুলনা ডুমুরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অধ্যক্ষ মফিকুল ইসলাম, তালা উপজেলা পানি উন্নয়ন কমিটির সভাপতি মঈনুল ইসলাম, পাইকগাছা উপজেলা পানি উন্নয়ন কমিটির সভাপতি আবদুল মান্নান, অভয়নগর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আবদুল মালেক মোল্যা, যশোর জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান লায়লা খাতুন, মনিরামপুর উপজেলার নেহালপুর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব কামরুজ্জামান, নেহালপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি রুহুল আমিন, কুলটিয়া ইউপি চেয়ারম্যান শেখর চন্দ্র, সুন্দলী ইউপি চেয়ারম্যান বিকাশ রায় কপিল, পৌর কাউন্সিলর জাকির হোসেন, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ফিরোজ আলম, মুক্তেশ্বরী কলেজের প্রভাষক মদন মহন চক্রবর্তী প্রমুখ। বক্তারা যশোর পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকা-ে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন- যশোরের অভয়নগরসহ খুলনার ৩৩০বর্গকিলোমিটার এলাকার প্রায় ২৫লাখ মানুষের দুঃখ-দুর্দশার নামই হলো ভবদহ। ২৭টি বিলের সাথে জড়িত লাখ লাখ পরিবার এ জলাবদ্ধার শিকার হয় প্রতিবছর। ভবদহ এলাকার স্লুইস গেটগুলো বিকল হয়ে পড়ে রয়েছে। ভবদহ এলাকার সব কয়টি নদীতে নাব্যতা সংকট চলছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে ব্যবস্থা গ্রহণ করা না হলে চলতি বর্ষা মৌসুমে ভয়াবহ জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হবে। বিপদগ্রস্ত হবে ২৫লাখ মানুষ, গবাদিপশু, ফসলি জমি ও হাজারও মৎস্য ঘের। ভবদহ সমস্যার সমাধানের নামে প্রজেক্টের পর প্রজেক্ট গ্রহণ করে যুগযুগ ধরে কোটি কোটি টাকা শুধু লুটপাটই হয়েছে, জলাবদ্ধতা নিরসনে নুন্যতম সমাধান হয়নি। ভবদহ জলাবদ্ধতা নিরসন আন্দোলন কমিটি ও অভয়নগর উপজেলা আওয়ামীলীগের আহবায়ক এনামুল হক বাবুল বলেন- জলাবদ্ধতার স্থায়ী সমাধানে টিআরএম প্রকল্পের বিকল্প নেই। উজানের সাথে সংযোগ স্থাপন এবং বিল কপালিয়াসহ খাল-বিলে টাইডাল রিভার ম্যানেজমেন্ট (টিআরএম প্রকল্প) চালু করতে হবে। শ্রীনদী, হরিহর নদী, টেকা নদী, মুক্তেশ্বরী নদীর ভরাট হওয়া তলদেশের মাটি কেটে পাড় বাঁধানোর ব্যবস্থা করতে হবে। তিনি হুশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন- ঘোষিত দাবিগুলো দ্রুত বাস্তবায়ন করা না হলে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন, রাজপথ-রেলপথ অবরোধ, অনশনসহ কঠোর আন্দোলনের মধ্যদিয়ে হত দরিদ্র ও পানিবন্দি অসহায় ভবদহবাসীর ভাগ্য ফিরিয়ে আনা হবে। প্রয়োজনে রক্ত দিয়ে হলেও দাবি বাস্তবায়ন করা হবে। উল্লেখ্য, সবুজ বিপ্লবের ঘোষণা দিয়ে ১৯৬০সালের দিকে যশোরের সদর, মনিরামপুর, কেশবপুর ও অভয়নগর উপজেলা এবং খুলনার ফুলতলা ও ডুমুরিয়া উপজেলার মধ্যবর্তী ভবদহ নামকস্থানে শ্রীনদীর ওপর নির্মাণ করা হয় ২১ ভেণ্টের স্লুইস গেট।

 

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.