বুড়ো বয়সের ছবি শেয়ারে বিপদের শঙ্কা

0

তথ্য-প্রযুক্তি ডেস্ক /- ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকা কেলেঙ্কারি থেকে ব্যবহারকারীদের শিক্ষা হয়নি। অন্যথায় ফেসঅ্যাপের হাতে নিশ্চিন্তে নিজেদের তথ্য তুলে দিতো না।

নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞদের মতে,ফেসঅ্যাপের অপব্যবহারের আশঙ্কা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। ফেসঅ্যাপের মাধ্যমে ব্যবহারকারীরা একদিকে যেমন অভিব্যক্তি, লুক এবং বয়স পরিবর্তনের সুবিধা পাচ্ছেন, অন্যদিকে তেমনি অ্যাপটিকে ক্ষমতা দিয়ে দিচ্ছেন যতদিন খুশি তাদের নাম ও ছবি সংরক্ষণের রাখার- যা অ্যাপটি যেকোনো কাজে ব্যবহার করতে পারবে!

গুগল প্লে স্টোর থেকে ফেসঅ্যাপ ১০ কোটির বেশিবার ডাউনলোড হয়েছে। ১২১ দেশে আইওএস অ্যাপ স্টোরের শীর্ষ ডাউনলোড হওয়ার তালিকায় রয়েছে। অ্যাপটি তাদের শর্তাবলীতে বলেই রেখেছে- ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রামে শেয়ারের জন্য ব্যবহারকারীরা লুক পরিবর্তনের যেসব ছবি দেবে, সেগুলো অ্যাপটি যেকোনো কাজে ব্যবহার করতে পারবে।

নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অ্যাপটি ব্যবহার করতে গিয়ে নিজের নাম, ছবিসহ অন্যান্য তথ্য তৃতীয় পক্ষের হাতে যে তুলে দিতে হচ্ছে, সেদিকে কেউ নজর দিচ্ছে না। সবাই মনে করছে অ্যাপটি এমনিতেই ব্যবহার করা যাচ্ছে। ইতিমধ্যে ১৫ কোটি ব্যবহারকারীর নাম ও ছবি সংগ্রহ করেছে ফেসঅ্যাপ।

অ্যাপটি তৈরি করেছে রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ওয়্যারলেস ল্যাব। প্রতিষ্ঠানটি দাবি করেছে যে, এসব তথ্যের কোনো অপব্যবহার করা হবে না। গবেষণা কাজ শেষে ব্যবহারকারীদের তথ্যগুলো সার্ভার থেকে মুছে ফেলা হবে। ফোন এরিনার বিশেষজ্ঞ পিটার কস্তাদিনোভের ধারণা, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাভিত্তিক ফেসিয়াল রিকগনেশন প্রযুক্তি পেছনে তথ্যগুলো কাজে লাগাতে পারে প্রতিষ্ঠানটি।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.