‘রাষ্ট্রটাকে তারা তাদের ব্যক্তিগত সম্পত্তি মনে করেন’

0

ষ্টাফ রিপোর্টার/- ‘প্রশ্ন হচ্ছে, প্রধান নির্বাচন কমিশনার সরকারের একটি হজ দলের সদস্য হয়েছেন। যার প্রধান হচ্ছেন, ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আলহাজ শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ। আর প্রধান নির্বাচন কমিশনার একজন সদস্য। এটা পুরো হাস্যকর ব্যাপার।’ বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ‘আমরা এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি এবং আমরা অবিলম্বে সরকারের কাছ থেকে একটা ব্যাখ্যা দাবি করছি।’

ফখরুল বলেন, ‘এটা প্রমাণ করে যে, এই সরকার এবং নির্বাচন কমিশন এরা যে সংবিধানকে একেবারে তোয়াক্কা করেই না, সংবিধানের আশপাশ দিয়ে যায় না এবং একই সঙ্গে এই রাষ্ট্রটাকে তারা তাদের ব্যক্তিগত সম্পত্তি মনে করেন।’

‘সংবিধানের বাইরে যাওয়ার ক্ষমতা কারোরই নেই। সেখানে প্রধান নির্বাচন কর্মকর্তা কোন আইনে, কোন ক্ষমতা বলে একটা হজ ব্যবস্থাপনার তত্ত্বাবধায়ন ও দিক নির্দেশনা প্রদানের জন্য একটি হজ প্রতিনিধি দলের সদস্য হয়ে যাচ্ছেন’-যোগ করেন বিএনপি মহাসচিব।

তিনি বলেন, ‘এটা ডিসগ্রেসফুল। চিন্তা করা যায় না তিনি (সিইসি) এ রকম কমিটিতে সৌদি আরব যাচ্ছেন। উনি যদি হজ করতে চাইতেন তাহলে বাদশাহর বিশেষ মেহমান হয়ে যেতে পারতেন। আপনাদের মতো আত্মসম্মান বিবর্জিত ব্যক্তিদেরকে নির্বাচন কমিশনের প্রধান করা হয়। এর মাধ্যমে দেশের নির্বাচন ব্যবস্থাকে তারা কোথায় নিয়ে গেছেন।’

গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে এই বৈঠক হয়। বৈঠকে সিইসির হজ প্রতিনিধি দলের সদস্য হওয়ার বিষয়টি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়।লন্ডন থেকে স্কাইপে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান যুক্ত ছিলেন।বৈঠকে অন্যদের মধ্যে খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মওদুদ আহমদ, জমিরউদ্দিন সরকার, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, সেলিমা রহমান, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু উপস্থিত ছিলেন।

প্রেস ব্রিফিংয়ে বিএনপি মহাসচিব সংবিধানে বর্ণিত ১১৯ অনুচ্ছেদে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের দায়িত্ব, কর্মকাণ্ড ও হজ কমিটি গঠনের গেজেটের বিষয়টি তুলে ধরেন।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.