Ultimate magazine theme for WordPress.

‘আসুন সকলে মিলে বাঙালিয়ানাকে আবার উজ্জীবিত করি’

0

ষ্টাফ রিপোর্টার/- ‘আসুন সকলে মিলে বাঙালিয়ানাকে আবার উজ্জীবিত করি। আমরা চাই নির্ভেজাল বাঙালিত্ব। আমাদের হাজার বছরের যে ঐতিহ্য, সেই ঐতিহ্যের বাঙালি সংস্কৃতি, চাল-চলন, পোশাক-পরিচ্ছদ, আচার-অনুষ্ঠান সবকিছুকে আমরা ধরে রাখতে চাই।’ কথাগুলো বলেছেন, গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী শ. ম. রেজাউল করিম।

মঙ্গলবার বিকেলে বাংলাদেশ রোইং ফেডারেশেনের ব্যবস্থাপনায় রাজধানীর হাতিরঝিল লেকে আয়োজিত মহান স্বাধীনতা দিবস নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা ২০১৯ এর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ আহ্বান জানান।

boat-2গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী বলেন, ‘হাজার বছরের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন আপাদমস্তক একজন বাঙালি। তার কথা-বার্তায়, চাল-চলনে, পোশাক-পরিচ্ছদে এবং বাঙালির কৃষ্টি, সংস্কৃতি, ইতিহাস, ঐতিহ্য-সবকিছুতে বাঙালিয়ানা ছিল বঙ্গবন্ধুর বৈশিষ্ট্যের প্রধানতম দিক।মন্ত্রী বলেন, ‘বাঙালির যে নিজস্ব সংস্কৃতি তার অন্যতম হলো নৌকাবাইচ। গ্রামে, গঞ্জে, প্রত্যন্ত অঞ্চলে নৌকাবাইচ বাঙালির অত্যন্ত প্রিয় একটি পর্ব। নৌকাবাইচ বাঙালিদের আলাদা আনন্দ দেয় এবং বাঙালির স্বতন্ত্র পরিচয় বহন করে। কিন্তু বিভিন্ন কারণে এই নৌকাবাইচ বিলুপ্ত হওয়ার পথে। আমি আনন্দিত যে, বাংলাদেশ রোইং ফেডারেশন নৌকাবাইচের ধারাকে ধরে রেখেছে এবং আমাদের ছেলে-মেয়েদের প্রশিক্ষণ দিয়ে দেশে ও দেশের বাইরে এই জাতীয় কর্মকাণ্ডে পাঠাচ্ছে। এ জন্য আমরা বাংলাদেশ রোইং ফেডারেশনের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে সরকারের পক্ষ থেকে অভিনন্দন জানাচ্ছি।’

পরে মন্ত্রী বেলুন উড়িয়ে মহান স্বাধীনতা দিবস নৌকাবাইচ প্রতিযোগিতার শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করেন। এর আগে বাংলাদেশ রোইং ফেডারেশনের সভাপতি অ্যাডভোকেট মোল্লা মো. আবু কাওছার স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন।

উল্লেখ্য, মহান স্বাধীনতা দিবস নৌকাবাইচ প্রতিযোগিতা ২০১৯ এ ১১টি পুরুষ দল ও ৪টি মহিলা দল হাতিরঝিল লেকে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.