Ultimate magazine theme for WordPress.

মানবপাচার চক্রের প্রধান সোহাগসহ ৬ জনকে গ্রেপ্তার

0

টাঙ্গাইল থেকে সংবাদদাতা/- টাঙ্গাইলের সখীপুরে অস্ট্রেলিয়ায় পাঠানোর নামে শতাধিক মানুষের কাছ থেকে প্রায় ২০ কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার হোতা ও মানবপাচার চক্রের প্রধান সোহাগসহ ছয় জনকে গ্রেপ্তার করেছে সখীপুর থানা পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- সখীপুর পৌরসভার ৩নম্বর ওয়ার্ডের সৌখিন মোড় এলাকার সোহাগ মিয়া (২৪), তার বাবা মজিবর রহমান, বোন জামাই শাহজাহান আলী, সহযোগী নাসির উদ্দিন। অপর দুই প্রতারক সুমন ও তার স্ত্রী নাবিলা অস্ট্রেলিয়ার ভানুয়াতুতের পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হয়েছে। গত ২৪ নভেম্বর প্রতারণার শিকার আনিসুর রহমান বাদী হয়ে মামলা করলে পুলিশ তাদের গ্রেপ্তার করেছে।

মামলা ও ভুক্তভোগীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, এক বছর ধরে সখীপুর উপজেলাসহ টাঙ্গাইল ও ময়মনসিংহের বিভিন্ন উপজেলার বিদেশ যেতে আগ্রহী শতাধিক লোকের কাছ থেকে প্রায় ২০ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয় সোহাগ ও তার পরিবার। এদের মধ্যে কয়েকজনকে নিয়ে সোহাগের পার্টনার সুমন ও তার স্ত্রী নাবিলা অস্ট্রেলিয়ার ভানুয়াতুতের পুলিশের কাছে গ্রেপ্তার হয়েছে। গ্রেপ্তারের খবর ওই দেশের ভানুয়াতুত ডেইলি পোস্ট ও ডেইলি ফিজি পত্রিকায় প্রকাশিত হলে তাদের প্রতারণার বিষয়টি প্রকাশ পেয়ে যায়। পরে গত ২৪ নভেম্বর প্রতারক সোহাগ ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে ভুক্তভোগীদের পক্ষে আনিসুর রহমান বাদী হয়ে মামলা করলে পুলিশ ওই দিনই সোহাগের বাবা মজিবর রহমান, তার বোনজামাই শাহজাহান এবং সহযোগী নাসির উদ্দিনকে গ্রেপ্তার করে টাঙ্গাইল আদালতে পাঠায়।

আদালতে আসামিরা ৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। পরে গত ৪ ডিসেম্বর টাঙ্গাইল ডিবি পুলিশের হাতে প্রতারক চক্রের হোতা সোহাগ গ্রেপ্তার হলে তাকে ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়। পরে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলি আদালত সখীপুরের বিচারক নওরিন মাহবুব তাকে তিন দিনের রিমান্ড মুঞ্জুর করেন।

মামলার বাদী মো. আনিসুর রহমান বলেন, ‘‘আমিসহ টাঙ্গাইল ও ময়মনসিংহ জেলার বিভিন্ন উপজেলার তালিকা পাওয়া ১১০ জন লোকের কাছ থেকে সোহাগ ও তার পরিবারের লোকজন ১৫-১৮ লাখ টাকা করে প্রায় ২০ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। আমরা আমাদের টাকা ফেরত এবং প্রতারকদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’’

সখীপুর থানার ওসি (তদন্ত) ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা লুৎফুল কবির বলেন, এ মামলায় সোহাগসহ ছয়জন গ্রেপ্তার হয়েছে। রিমান্ডে সোহাগ অস্ট্রেলিয়া নেওয়ার নামে প্রায় ২০ কোটি হাতিয়ে নেওয়ার কথা স্বীকার করেছে। প্রতারণার সঙ্গে আরো যারা জড়িত, তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.