Ultimate magazine theme for WordPress.

পাঁচ বছর পূর্ণ হলে গৃহঋণ পাবেন শিক্ষা প্রশাসন কর্মকর্তা-কর্মচারীরা

0

সচিবালয় প্রতিবেদক /- শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের অধীনস্ত অধিদপ্তর, দপ্তর ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং সরকারি শিক্ষকরা গৃহঋণ, গৃহ মেরামত, কম্পিউটার, মোটর গাড়ি ও মোটরসাইকেল বাবদ ঋণ ও অগ্রিম টাকা গ্রহণ করতে পারবেন। তবে এজন্য তাদের চাকরির মেয়াদ ৫ বছর পূর্ণ হতে হবে।

চলতি ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে এ ধরনের ঋণ পেতে ৩০ ডিসেম্বরের মধ্যে আবেদন পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয়ের সেবা শাখায় স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানের প্রধানের সুপারিশসহ আবেদন সরাসরি পাঠাতে বলা হয়েছে এসব সরকারি কর্মকর্তা, কর্মচারী ও শিক্ষকদের।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত চিঠি পেয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর সোমবার জেলা ও উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাকে পাঠিয়েছে।

চিঠিতে বলা হয়, চলতি ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের অধীনস্ত অধিদপ্তর, দপ্তর ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের গৃহ নির্মাণ, গৃহ মেরামত, কম্পিউটার, মোটরগাড়ি ও মোটরসাইকেল বাবদ ঋণ ও অগ্রিম বাবদ বরাদ্দকৃত টাকা থেকে ঋণ ও অগ্রিম টাকা প্রদানে আগামী ৩০ ডিসেম্বরের মধ্যে আবেদন করতে হবে। ৩০ ডিসেম্বর অফিস সময়ের মধ্যে স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানের প্রধানের সুপারিশ ও নামযুক্ত সিলসহ ফরোয়ার্ডিং সেন্টারের মাধ্যমে মন্ত্রণালয়ের সেবা শাখায় পাঠাতে হবে।

তবে উন্নয়ন প্রকল্পের কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারী অগ্রিম ঋণের আবেদন করতে পারবেন না। অগ্রিম ঋণ পেতে সরকারি চাকরির মেয়াদ ৫ বছর পূর্ণ হতে হবে। এছাড়া, সুদসহ গৃহ নির্মাণ অগ্রিম আদায় না হওয়া পর্যন্ত গৃহ মেরামত অগ্রিম প্রদান করা হবে না।

মূল বেতন ৬ হাজার টাকা হলে মোটর গাড়ির অগ্রিম ঋণ গ্রহণের জন্য আবেদন করতে পারবেন বলেও জানিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। গৃহ নির্মাণ, মোটর গাড়ি, মোটরসাইকেলের অগ্রিম গ্রহণে ৩০০ টাকার নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে বায়নাপত্র প্রদান করতে হবে। আবেদকারীর বয়স প্রমাণের জন্য ১ম ও ২য় শ্রেণির কর্মকর্তাদের এসএসসির সনদপত্র এবং ৩য় ও ৪র্থ শ্রেণির কর্মচারীদের সার্ভিস বইয়ের ৩য় ও ৪র্থ পাতা এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র কর্মকর্তার নামযুক্ত সিলসহ সত্যায়িত কপি পাঠাতে হবে। এছাড়া, প্রত্যয়নপত্রে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের স্মারক নম্বর ও তারিখ অবশ্যই উল্লেখ করতে হবে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.