Ultimate magazine theme for WordPress.

হত্যার দুইদিন পর শীতলক্ষ্যা জাহাজ শ্রমিকের লাশ উদ্ধার

0

নারায়ণগঞ্জ থেকে সংবাদদাতা/- হত্যার দুইদিন পর শীতলক্ষ্যা নদী থেকে লাশ উদ্ধার হলো জাহিদ নামে এক তেলের জাহাজ শ্রমিকের।

শনিবার রাতে আদমজী ইপিজেড এলাকায় শীতলক্ষ্যা নদীতে হত্যাকাণ্ডটি ঘটে। নিহত জাহিদ পিরোজপুর জেলার চল্লিশা গ্রামের আমির আলীর ছেলে। হত্যাকাণ্ডের দুই দিন পর পুলিশ সোমবার বিকেলে বন্দর এলাকার আমিরাবাদ ডকইয়ার্ড থেকে লাশটি উদ্ধার করে।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী জাহিদের সহকর্মী মামুন ও সোহেলের বরাত দিয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার পরিদর্শক (অপরাশেন) আজিজুল হক জানান, জাহিদসহ তারা কয়েকজন এসও এলাকার তেলের ব্যবসায়ী ইকবালের মালিকানাধিন এস.এস. ইশান-২ নামক একটি লাইটার জাহাজে কাজ করতো। শনিবার রাতে জাহিদের বন্ধু মাইনুদ্দিন ওই জাহাজে আসে তাদের সাথে দেখা করার জন্য। মাইনুদ্দিন এ সময় জাহিদ, মামুন এবং সোহেলকে নিয়ে চটপটি খাওয়ার কথা বলে নৌকা নিয়ে আদমজী বাজারের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়। মাইনুদ্দিনের সাথে ছিল অপরিচিত আরো তিনজন।

আজিজুল হক জানান, নৌকা ঘাটে না ভিড়িয়ে আদমজী ইপিজেডের দিকে নিয়ে যেতে থাকে মাইনুদ্দিন। ইপিজেড এলাকায় পৌঁছালে হঠাৎই মাইনুদ্দিন বড় এক ছুরি বের করে জাহিদের মাথায় ও দেহে আঘাত করতে থাকে। এ দৃশ্য দেখে ভয়ে সোহেল নদীতে লাফ দেয়। এসময় মামুন লাফ দিতে গেলে মাইনুদ্দিনের সাথে থাকা লোকজন তাকে ধরে ফেলে। পরে তাকে মারতে উদ্যত হলে সে প্রাণ ভিক্ষা চেয়ে বেঁচে আসে। এ সময় মাইনুদ্দিন তাদের বাড়ি থেকে বিকাশে টাকা নিয়ে এসে চলে যেতে বলে। আর এ ঘটনা কাউকে বললে তকেও মেরে ফেলার হুমকি দেয়। পরে সোহেল ও মামুন থানায় এসে বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করে। সোমবার বিকেলে জাহিদের লাশ উদ্ধারের নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায় পুলিশ। মাইনুদ্দিন রাজশাহী জেলার আবুল কাশেমের ছেলে।

এ ঘটনায় সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা হয়েছে আসামীকে গ্রেফতারের অভিযান চলছে।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.