Ultimate magazine theme for WordPress.

দারুণ ব্যাটিংয়ে ব্যাটসম্যানদের প্রশংসায় ভাসিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ

0

ক্রীড়া প্রতিবেদক /- প্রথমবারের মতো টেস্টের এক ইনিংসে বাংলাদেশের ১১ ব্যাটসম্যানের স্কোর গেল দুই অঙ্কে। ক্রিকেট বিশ্বের ১৪তম ঘটনা এটি।

বাড়তি ব্যাটসম্যান হিসেবে লিটন কুমার দাশকে ঢাকা টেস্টে অন্তর্ভূক্ত করেছে দল। ব্যাটিং অর্ডারে ৯ নম্বর পর্যন্ত ছিল প্রতিষ্ঠিত ব্যাটসম্যান। শেষ দুটি নামও বেশ গুরুত্বপূর্ণ, তাইজুল ইসলাম ও নাঈম হাসান। দুজন শেষ ম্যাচে দলের হয়ে ব্যাট হাতে অবদান রেখেছেন। এবারও তাই।

সাদমান থেকে শুরু করে নাঈম পর্যন্ত প্রত্যেকেই ছুঁয়েছেন দুই অঙ্ক। ১২ রানে অপরাজিত থাকেন নাঈম। ১৪ রান করেন মুশফিক। সবথেকে বেশি রান মাহমুদউল্লাহর, ১৩৬। হাফ সেঞ্চুরি পেয়েছেন সাকিব (৮০), সাদমান (৭৬) ও লিটন (৫৪)। সব মিলিয়ে দলের স্কোর ৫০৮। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দ্বিতীয়বারের মতো বাংলাদেশ পাঁচশ’র বেশি রান করল।দারুণ ব্যাটিংয়ে ব্যাটসম্যানদের প্রশংসায় ভাসিয়েছেন সেঞ্চুরি পাওয়া মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। শনিবার দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষে দলের প্রতিনিধি হয়ে সংবাদ সম্মেলনে আসেন মাহমুদউল্লাহ।

স্কোরবোর্ডে পাহাড় সমান পুঁজি আসলেও রানের জন্য ২২ গজে কঠিন পরিস্থিতির মুখে পড়তে হয়েছে ব্যাটসম্যানদের। মন্থর উইকেটে শেষ পর্যন্ত বলের ওপর নজর রাখতে হয়েছে ব্যাটসম্যানদের।

মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ বলেন, ‘আমাদের ব্যাটসম্যানরা অনেক ভালো ব্যাটিং করেছে। আমাদের স্কোরকার্ড দেখেন, সবাই ডাবল ফিগারে গিয়েছে। আমার ইনিংসটা একটু বড় হয়েছে, সাকিবের ইনিংসটা বড় হয়েছে। সাদমান খুব ভালো ব্যাটিং করেছে। আর সবাই স্টার্ট পেয়েছিল।’

‘উইকেট ওতটা সহজ ছিল না, রান স্কোরিংয়ের দিক থেকে। অনেক ধৈর্য নিয়ে খেলতে হয়েছে। আমাদের শটস দেখেন, খুব একটা চার হয়নি। সীমানাও বেশ বড় ছিল। আমাদের গ্যাপে জোরে বল পাঠাতে হয়েছে। এই জিনিসটা খুব গুরুত্বপূর্ণ ছিল। সবাই অনেক ধৈর্য নিয়ে ব্যাট করেছে।’ যোগ করেন তিনি।সাকিব, সাদমান ও লিটনের ব্যাটিং নিয়ে মাহমুদউল্লাহ আলাদা করে মূল্যায়ন করেছেন, ‘সাকিবের ইনিংসটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ ছিল। বেশ কষ্ট করে ব্যাট করছিল। এটা ঠিক সাকিব বেশ ইতিবাচক ছিল। আমিও তাই। আমার মনে হয় নতুন বল থাকাকালিন বল কিছুটা ভালো ব্যাটে আসছিল। ওই সময়টায় স্কোরিং অপশনটা কিছুটা হলেও ভালো ছিল, যেহেতু বল ব্যাটে আসছিল। বল পুরনো হলে স্কোরিং অপশনটা কঠিন হয়ে যায়। আমরা চেয়েছিলাম বাজে বলগুলো ব্যবহার করতে। সাদমানের শুরুটা গুরুত্বপূর্ণ ছিল। খুবই ভালো ব্যাটিং করেছে। বুঝাই যায়নি ও প্রথম ম্যাচ খেলছে, মানে খুবই ধারাবাহিক ছিল।’

‘উইকেটে বল খুব যে ব্যাটে আসছিল এমন ছিল না। কষ্ট করে ব্যাট করতে হয়েছে। লিটন খুব ভালো ব্যাটিং করেছে। শেষ টেস্ট ম্যাচে দলের বাইরে ছিল, এই টেস্টে এসে খুব ভালো ব্যাট করেছে। খুব ইতিবাচক ব্যাটিং করেছে। আর আমার মনে হয় এভাবে ব্যাট করাই ওর জন্য সবচেয়ে ভালো ও দলের জন্যও সবচেয়ে ভালো।’

Leave A Reply

Your email address will not be published.