Ultimate magazine theme for WordPress.

বিমানে উঠার আগে এয়ারপোর্টে আপনি কী খাচ্ছেন

0

লাইফস্টাইল ডেস্ক /- বিমানে উড়ে দূর দূরান্তে পাড়ি দেয়ার কাজটা ঠিক সহজ বিষয় নয়। অনেকেরই উচ্চতা ভীতি যেমন আছে, তেমনি গতিময় বিমানে দীর্ঘক্ষণ চড়ে অসুস্থ হওয়ার প্রবণতাও আছে অনেকের মাঝে। এক্ষেত্রে বিমানে উঠার আগে এয়ারপোর্টে আপনি কী খাচ্ছেন, সেটা খুব গুরুত্বপূর্ণ।


মূলত এয়ারপোর্টে যেসব খাবার পাওয়া যায়, সেগুলোর সবই কিন্তু স্বাস্থ্যকর না। আর সে কারণে অনেক পুষ্টিকর খাবারও বিমানে উঠার আগে আপনি খেলে তা শরীর খারাপ করে দিতে পারে। চলুন জেনে নেই কোন কোন খাবার বিমানে উঠার আগে খাওয়া উচিত না-

তাজা ফল ও সবজি : শুনতে অবাক করা কথা হলেও বিমানে উঠার আগে তাজা ফল ও সবজি খাওয়া ঠিক না। এমনিতে এসব খাবার পুষ্টিকর। তবে সেগুলোতে ব্যাকটেরিয়া থাকার সম্ভাবনা বেশি থাকে, যা আপনাকে অসুস্থ করে দিতে পারে বিমানে উড়ার সময়।

পিৎজা : এয়ারপোর্টে যেসব খাবারের দোকান থাকে, সেগুলোতে পুরো দিনই পিৎজা সাজিয়ে রাখা হয়। আর সঠিক তাপমাত্রায় রাখা না হলে সেসব পিৎজা সহজেই নষ্ট হয়ে যেতে পারে। তাই এয়ারপোর্টে পিৎজা না খাওয়াই ভালো।

প্রিটজেল : বিমানে উঠার আগে আদর্শ খাবার হিসেবেই বিবেচনা করা হয় প্রিটজেলকে। তবে সেগুলোর উপরে থাকা তৈলাক্ত উপাদান আপনার হজমে সমস্যা তৈরি করতে পারে।

সালাদ : টাটকা সবজি খাওয়ার প্রবণতা ভালো। তবে কোনো এয়ারপোর্টে গিয়ে সালাদ খাওয়া থেকে বিরত থাকুন। কারণ তাতে ব্যাকটেরিয়া থাকার সম্ভাবনা বেশি, যা আপনাকে অসুস্থ করে দিতে পারে।

ক্যান্ডি : এয়ারপোর্টে বেশি ক্যান্ডি খাওয়াও ঠিক না। কারণ তা বমির ভাব বাড়িয়ে দেয়।

বার্গার : এয়ারপোর্টে যেসব খাবারের দোকান থাকে, সেগুলোতে তৈরি বার্গার তেমন ভালো হয় না। তাই সেগুলো খেলে হজমের সমস্যা দেখা দিতে পারে। সে কারণে এয়ারপোর্টে বার্গার খাওয়া ঠিক না।

স্যান্ডউইচ : এয়ারপোর্টের বিভিন্ন ক্যাফেতে অনেক স্যান্ডউইচ সাজানো থাকে। তবে আপনি জানেন না কতো সময় ধরে সেগুলো ডিসপ্লে করা হচ্ছে। এছাড়া ব্রেডটা কতো আগের তাও জানেন না আপনি। তাই এয়ারপোর্টে যথাসম্ভব স্যান্ডউইচ এড়িয়ে চলুন।

সুশি : জাপানি খাবার সুশি টাটকা সব উপকরণ দিয়ে তৈরি করা হয়। কিন্তু দীর্ঘক্ষণ সঠিক তাপমাত্রায় না রাখলে তা শরীরের জন্য খুব ক্ষতিকর হতে পারে।

মাংস : এয়ারপোর্টে চিকেন, মাটন, বিফ কোনো ধরনের মাংস খাওয়া থেকে বিরত থাকুন। কারণ সেসব মাংস ভালোভাবে রান্না করা হয় না। এছাড়া সঠিক তাপমাত্রায় না রাখলে সেসব মাংসে ব্যাকটেরিয়া জমা হয়। তাই এয়ারপোর্টে মাংস খেলে অসুস্থ হওয়ার আশঙ্কা থাকে।

তাহলে কী খাবেন ?
উপরের সব তালিকা দেখে আপনার মনে হতেই পারে তাহলে আর কোনো খাবারই হয়তো এয়ারপোর্টে খাওয়া যাবে না। বিষয়টা তা নয়। এয়ারপোর্টে টেট্রা প্যাক করা জুস, বাটার মিল্ক, প্যাকেটজাত বাদাম এসব খেতে পারেন আপনি। যদি খিদে মেটাতে হয়, তাহলে পার্শ্ববর্তী যেসব রেস্টুরেন্টে গরম খাবার পাওয়া যায়, তা খেতে পারেন। তবে যাই খান, খেয়াল রাখতে হবে অতিরিক্ত যেন না হয় আর তা যেন বিমানে চড়ার পর আপনাকে অসুস্থ করে না তোলে।

তথ্যসূত্র: টাইমন অব ইন্ডিয়া

Leave A Reply

Your email address will not be published.