LastNews24
Online News Paper In Bangladesh

ক্ষেপেছেন আনুশকা, জবাবে যা বললেন গাভাস্কার

0

খেলাধুলা ডেস্ক/- মাঠে ব্যর্থ হয়েছেন বিরাট কোহলি। আর তাকে ঘিরে মাঠের বাইরে আলোচনার ঝড় তুলেছেন ভারতের সাবেক অধিনায়ক, লিটল মাস্টারখ্যাত সুনিল গাভাস্কার এবং কোহলির স্ত্রী আনুশকা শর্মা। শুরুটা করেছিলেন গাভাস্কারই। ধারাভাষ্য দেয়ার সময় বলেছিলেন কোহলি-আনুশকার বিল্ডিং কমপাউন্ডে অনুশীলনের কথা।

সেই কথার সূত্র ধরেই নেটিজেনদের আক্রমণের শিকার হয়েছেন গাভাস্কার। বাদ যাননি আনুশকাও। ঝাঁঝালো মন্তব্যে রীতিমতো ধুয়ে দিয়েছেন গাভাস্কারকে। আনুশকার কড়া প্রতিবাদের পর স্বাভাবিকভাবেই আত্মপক্ষ সমর্থন করে বিবৃতি দিয়েছেন গাভাস্কার। এখন দুজনেই সেই মন্তব্য ঘিরেই উত্তাল আইপিএল।

ঘটনা বৃহস্পতিবার রাতের, কিংস এলেভেন পাঞ্জাব ও রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরুর মধ্যকার ম্যাচের। যেখানে প্রথমে ফিল্ডিংয়ের সময় কোহলি ছেড়েছেন দুইটি লোপ্পা ক্যাচ, পরে ব্যাটিংয়ে নেমে ফালতু শট খেলে আউট হয়েছেন মাত্র ১ রান করে। সবশেষ মরার ওপর খাঁড়ার ঘা হয়ে এসেছে, স্লো ওভার রেটের কারণে ১২ লাখ রুপি জরিমানা।

এমন পারফরম্যান্সের সমালোচনা করতে গিয়ে গাভাস্কার ধারাভাষ্যে বলেছিলেন, ‘কোহলি সবসময় ভালো করতে চায়। সে জানে যত প্র্যাকটিস করবে, তত ভালো হবে। করোনাভাইরাসের কারণে লকডাউন চলছিল ভারতে। তখন সে আনুশকা শর্মার বোলিংয়ের বিপক্ষে খেলেছে। এটা নিশ্চয়ই তাকে খুব একটা সাহায্য করবে না।’

মুহূর্তের মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে যায় ৩৪ সেকেন্ডের এই ধারাভাষ্য ক্লিপ। কোহলির পক্ষ নিয়ে সবাই দাবি জানায় গাভাস্কারকে বহিষ্কারের। যা নজর এড়ায়নি আনুশকার শর্মারও। উত্তর দিতে তিনি বেছে নেন ইন্সটাগ্রাম স্টোরি সেকশনকে। যেখানে বিশদ এক বার্তায় গাভাস্কারের মন্তব্যের বিরোধিতা করেছেন আনুশকা।

শুক্রবার ইন্ডিয়া টুডে’কে দেয়া সাক্ষাৎকারে আনুশকার মন্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় গাভাস্কার বলেছেন, ‘ধারাভাষ্যে আপনারা যেমনটা শুনেছেন, আমি ও আকাশ চোপড়া হিন্দি চ্যানেলের দায়িত্বে ছিলাম। আকাশ তখন প্রসঙ্গটা তুলেছিল যে, সবাই খুব কম অনুশীলনের সুযোগ পেয়েছে। যা কি না প্রত্যেকটা খেলোয়াড়ের প্রথম ম্যাচেই ছাপ পড়েছে। রোহিত, ধোনিরা ঠিকঠাক ব্যাটে-বলতে খেলতে পারেনি, কোহলিও পারেনি। অনুশীলনের ঘাটতির কারণে বেশিরভাগ ব্যাটসম্যানেরই সমস্যা হয়েছে।’

‘ঠিক এই বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হচ্ছিলো। (লকডাউনের কারণে) বাকিদের মতো কোহলিরও কোনো অনুশীলন ছিল না। আমরা ভিডিওতে দেখেছি নিজেদের বিল্ডিং কমপাউন্ডে কোহলি অনুশীলন করছে এবং আনুশকা তাকে বোলিং করছিল। ঠিক এ জিনিসটাই আমি বলেছি। শুধু বোলিংয়ের কথাই বলেছি। আমি আর কোনো শব্দ ব্যবহার করিনি। এখানে তাকে (আনুশকাকে) দোষ দেয়া হলো কীভাবে? আমার মন্তব্যটা সেক্সিস্টই বা হলো কীভাবে? আমি শুধু তাই বলেছি, যা তার প্রতিবেশির করা ভিডিওতে দেখা গিয়েছে। এর বাইরে কিছুই বলিনি আমি।’

নিজের ধারাভাষ্যে আনুশকাকে দোষারোপ করেননি, এমনটা জানিয়ে নিজের অবস্থান আরও পরিষ্কার করে গাভাস্কার বলেন, ‘আমার পয়েন্ট ছিল যে, লকডাউনের কারণে কোহলিসহ কেউই কোনো অনুশীলনের সুযোগ পায়নি। আমি সেক্সিস্ট মন্তব্য করিনি। কেউ এটাকে ভুলভাবে উপস্থাপন করলে আমার কী করার থাকে?’

‘আমি আবারও বলছি, ঠিক কোথায় আনুশকাকে দোষারোপ করলাম আমি? কোহলি-আনুশকার অনুশীলনের ভিডিওতে যা দেখতে পেয়েছি, তাই শুধু বলেছি আমি। লকডাউনের মধ্যে কোহলি তো শুধু আনুশকার বোলিংয়ের বিপক্ষেই খেলার সুযোগ পেয়েছে। তাও টেনিস বল দিয়ে ফান ক্রিকেট, যেটা মজার জন্যই খেলা হয় সাধারণত। এখানে কোহলির ব্যর্থতার জন্য আনুশকাকে দায় দেয়া হলো কীভাবে?’

এসময় আত্মপক্ষ সমর্থনে আরও অনেক কথাই বলেছেন গাভাস্কার। যেকোনো বিদেশ সফরে ক্রিকেটারদের সঙ্গে তাদের স্ত্রীকে নেয়ার অনুমতি আদায়ের ক্ষেত্রে বরাবরই সরব ভারতের সাবেক অধিনায়ক। এ বিষয়টিও উল্লেখ করেছেন গাভাস্কার।

তিনি বলেন, ‘আপনারা আমাকে জানেন। আমি এমন একজন যে কি না সফরের সময় স্বামীদের সঙ্গে স্ত্রীকেও নিতে দেয়ার জন্য লড়াই করি। আমি তেমন একজন সাধারণ মানুষ, যে কি না সারাদিন কাজ করার পর বাসায় ফিরে স্ত্রীর সঙ্গে সময় কাটাতেই পছন্দ করে। একইভাবে ক্রিকেটাররা যখন দেশের বাইরে যায়, কিংবা দেশেই খেলে তখন কেনো তারা নিজেদের স্ত্রীকে সঙ্গে রাখতে পারবে না?’

এর আগে আনুশকা লিখেছিলেন, ‘মি. গাভাস্কার, আপনারব বার্তাটা খুবই কুরুচিপূর্ণ ছিল। তবে আমি খুশি হবো, যদি আপনি আমাকে জানান ঠিক কী কারণে এমন মন্তব্যের মাধ্যমে একজন স্বামীর খেলার মধ্যে তার স্ত্রীকে টেনে আনা হলো? আমি নিশ্চিত এত বছর ধরে আপনি সকল ক্রিকেটারদের ব্যক্তিগত জীবনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখেই ধারাভাষ্য করেছেন। আপনার কি মনে হয় না, সেই একইরকম শ্রদ্ধা আমার এবং কোহলির ক্ষেত্রেও দেখানো উচিৎ?’

‘আমি জানি, আমার স্বামীর গত রাতের পারফরম্যান্সের বিষয়ে বলার জন্য আপনার মাথায় আরও অনেক শব্দ কিংবা বাক্য রয়েছে। নাকি এর মধ্যে আমার নাম জড়ানোটাই শুধু যুক্তিযুক্ত? এখন ২০২০ সাল, তবু কোনোকিছু বদলায়নি। কবে আমাকে ক্রিকেটের মধ্যে টানা বন্ধ করা হবে? কবে এমন কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করা থামানো হবে?’

আনুশকার নিজের বার্তা শেষ করেন এভাবে, ‘শ্রদ্ধেয় মি. গাভাস্কার, ভদ্রলোকের খেলা ক্রিকেটে আপনি একজন কিংবদন্তি এবং আপনার নাম ওপরের দিকেই থাকে। আমি শুধু এটাই জানাতে চেয়েছি, যখন আপনি এসব শব্দ ব্যবহার করেছেন, তখন আমার কেমন লেগেছে!’

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

Privacy & Cookies Policy