LastNews24
Online News Paper In Bangladesh

আবার বিক্ষোভ সমাবেশের ঘোষণা বিএনপির

0

ষ্টাফ রিপোর্টার/- জিয়াউর রহমানের বীর উত্তম খেতাব বাতিলের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে আবার বিক্ষোভ সমাবেশের ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি।

আগামী বুধবার বরিশাল বিভাগ ছাড়া সারাদেশে মহানগর ও জেলায় সমাবেশ করবে দলটি।

রোববার গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন এ তথ্য জানিয়েছেন।

শনিবার অনুষ্ঠিত স্থায়ী কমিটির বৈঠকের সিদ্ধান্ত জানাতে এই সংবাদ সম্মেলন ডাকা হয়।

খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘জাতীয় স্থায়ী কমিটির সভায় স্বৈরতন্ত্র ও মাফিয়াতন্ত্র পতনের দাবিতে ও স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান বীর উত্তমের খেতাব বাতিলের সরকারি অপচেষ্টার প্রতিবাদে আগামী বুধবার বরিশাল বিভাগ ছাড়া সারাদেশে মহানগর ও জেলায় প্রতিবাদ সমাবেশ ও বিক্ষোভের কর্মসূচি ঘোষণা কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।’

তিনি বলেন, একইসঙ্গে পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচি অনুযায়ী আগামী ১৮ ফ্রেব্রুয়ারি বরিশাল সদরে আয়েজিত সমাবেশে দল ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীদের অংশ নিতে বলা হয়েছে।

পরবর্তীতে আরও কর্মসূচি আসবে কি না- প্রশ্ন করা হলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য বলেন, ধাপে ধাপে অবশ্যই কর্মসূচি থাকবে। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও সরকার পতনের আন্দোলন আমাদের চলমান আছে। বিভাগীয় সমাবেশ শুরু করতে যাচ্ছি। আগামী ১৮ তারিখ বরিশালে আমাদের যে সমাবেশ এটাও তো আমাদের গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার, মানুষের ভোটাধিকার ফিরিয়ে দেওয়ার দাবিতে অনুষ্ঠিত হবে। এভাবে আন্দোলনকে আমরা আমাদের লক্ষ্যে নিয়ে যেতে চাই।

জিয়ার খেতাব বাতিলের সিদ্ধান্ত গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলন থেকে জনগণের দৃষ্টিকে ভিন্ন দিকে নেওয়ার সরকারি পরিকল্পনার অংশ বলে মন্তব্য করেন খন্দকার মোশাররফ।

ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটের বাইরে অন্য উৎস থেকেও কোভিড-১৯ টিকা আনার উদ্যোগ নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান বিএনপি নেতা খন্দকার মোশাররফ।

তিনি বলেন, একটি সোর্সের উপর, একটি সাপ্লাইয়ের উপর আমাদের নির্ভর করা সমীচীন হচ্ছে না। কোনো দেশই একটি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান থেকে এই ভ্যাকসিন আনার ব্যবস্থা নেয়নি, তারা একাধিক সূত্র থেকে ক্রয়ের ব্যবস্থা নিয়েছে।

তিনি বলেন, তাই আমরা বলছি যে, আমাদের বিকল্প সোর্স যদি খোঁজা না হয়, তাহলে কিছুদিন পরে যে পরিমাণ আমাদের ভ্যাকসিন দেওয়া প্রয়োজন, সেই পরিমাণ ভ্যাকসিন দেওয়া সম্ভব হবে না।

‘বিএনপি পায়ে পাড়া দিয়ে ঝগড়া করছে’- আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদকের এ কথার জবাবে দলটির স্থায়ী কমিটির নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘আপনারা (সাংবাদিক) নিজেরাই তো সাক্ষী গতকাল জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে যে ঘটনা ঘটেছে। এই ঝগড়াটা কে লাগিয়েছে? বিএনপি না সরকারের পুলিশ?

তিনি বলেন, তারা আক্রমণ করে যদি বলে আমরা ঝগড়া লাগাচ্ছি-এটার জন্য আমাদেরকে প্রশ্ন না করে বরঞ্চ তাদেরকে বলা উচিত যে, আপনাদের লোকরাই তো ঝগড়া লাগাইতেছে।

আল জাজিরার প্রতিবেদন প্রকাশে বিএনপির হাত রয়েছে- একথার জবাবে তিনি বলেন, একজন মন্ত্রী একটা পার্টির জেনারেল সেক্রেটারি আল জাজিরার মতো একটা সংবাদ মাধ্যম সম্পর্কে কিছু জানেন না, এটা বিশ্বাস করা কঠিন।

তিনি বলেন, কাতারের শাসকগোষ্ঠির মালিকানাধীন আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম, তাকে প্রভাবিত করতেছে বাংলাদেশের বিরোধী দল বা বিএনপি। এরকম কথা যে বলে, তার প্রশ্নের কোনো জবাব দেওয়ার প্রয়োজন আছে বলে আমি মনে করি না। বরঞ্চ তাকে বলা দরকার যে, আপনি বোঝার চেষ্টা করেন, জানার চেষ্টা করেন, শেখার চেষ্টা করেন, তারপরে কথা বলেন।

সংবাদ সম্মেলনে দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আবদুস সালাম উপস্থিত ছিলেন।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

Privacy & Cookies Policy